অনলাইনে ছবি বিক্রি বাংলাদেশে ফটোগ্রাফারদের মধ্যে এখনও খুব প্রচলিত নয়। এদেশের বেশিরভাগ ফটোগ্রাফার সৌখিন ফটোগ্রাফার। স্টক ফটোগ্রাফার হতে হলে পেশাদার মানের ফটোগ্রাফার হতে হবে এমন না, তবে স্টক ফটোগ্রাফির বেসিক জানতে হবে। স্টক ফটোগ্রাফির বেসিক না জানার কারণে অনেকে বিক্রি না করতে পেরে হতাশ হয়ে পড়েন। ইউটিউবে এ ব্যাপারে প্রচুর কন্টেন্ট পাবেন ভাল করে শেখার জন্য।

দুটো টার্ম আগে জেনে নেয়া দরকার, এক্সক্লুসিভ ও নন-এক্সক্লুসিভ। যে ছবি শুধু একটা স্টক ফটো সাইটে দেয়া হয় সেটি এক্সক্লুসিভ ফটো, সেটি অন্য কোনো সাইটে দিতে পারবেন না। আর যে ছবি একাধিক সাইটে বিক্রির জন্য সাবমিট করবেন সেগুলো হল নন-এক্সক্লুসিভি ছবি। এক্সক্লুসিভ ছবির জন্য বেশি রয়ালিটি পাওয়া যায়।

অনলাইনে ছবি বিক্রির সেরা দশটি ওয়েবসাইট:

১. শাটারস্টক

Shutterstock-কে বলা চলে অনলাইনে ছবি বিক্রি করার সবচেয়ে সহজ উপায়। একই সাথে এটি সবচে বড় স্টক ফটোগ্রাফি ওয়েবসাইটগুলোর অন্যতম।

শাটারস্টককে একটি মাইক্রো-স্টক সাইট হিসাবে বিবেচনা করা হয়, এখানে ছবি সস্তায় বিক্রি হয়। বিক্রি বাড়ানোর প্রধান উপায় হল প্রচুর পরিমাণে ছবি দেওয়া। এখানে বেশি উপার্জনের আশা করা যাবে না, তবে যদি স্টক ফটো বিক্রি করা শিখতে চান বা শুরু করতে চান তবে এটি সেরা জায়গা।

২. গেটি ইমেজেসআইস্টক

Getty Images স্টক ফটোগ্রাফি সাইটগুলির মধ্যে সবচে দামী ও প্রেস্টিজিয়াস, এখানে ছবির মূল্য সবচে বেশি৷ যেসব ব্র্যান্ড ও মিডিয়া খুবই ভাল মানের বা দুর্লভ এক্সক্লুসিভ ছবি খুঁজে তারা গেটি ইমেজেসে আসে। গেটির আরও একটি স্টক ফটোর ওয়েবসাইট আছে সেটি হল আইস্টক। দুটো সাই মিলে গেটি সারা বিশ্বে ১৫ লক্ষ গ্রাহকদের কাছে পৌঁছেছে।

এখানে বিক্রি করতে হলে ছবি খুবই ভাল মানের হতে হবে, এবং এপ্রুভাল পাওয়াও সবচে কঠিন। গেটি ২০ থেকে ৪৫ শতাংশ পর্যন্ত রয়ালিটি দিয়ে থাকে।

গেটি ইমেজেসের সাথে iStock এর পার্থক্য হল আইস্টক হল মাইক্রো স্টক ফটো সাইট, সেখানে নন-এক্সক্লুসিভ ফটো বিক্রি হয়। এছাড়া গেটি ফ্রি ছবির সাইট আনস্প্ল্যাশকে কিনে নিয়েছে।

৩. এলামি

Alamy সবচে জনপ্রিয় অনলাইন ছবির মার্কেটপ্লেসগুলোর একটি। এখানে ছবি সাবমিট করতে বেশ কিছু কোয়ালিটি মেন্টেইন করতে হয়। আপনি দৈনন্দিন ছবি থেকে শুরু করে নির্দিষ্ট নিশ ছবি বিক্রি করতে পারেন, আইফোনে তোলা ছবি এমনকি সেলফিও।

প্ল্যাটফর্মটির বিশ্বব্যাপী ষাট হাজারের বেশি ফটোগ্রাফার এবং এক লাখের বেশি ক্রেতা রয়েছে। এক্সক্লুসিভ ছবিতে ৫০% ও নন-এক্সক্লুসিভ ছবিতে ৪০% রয়ালিটি দেয়।

৪. ৫০০পিএক্স লাইসেন্সিং

500px অপেশাদার এবং পেশাদার ফটোগ্রাফারদের জন্য একটি কমিউনিটি বেজড (সম্প্রদায়-ভিত্তিক, ফ্লিকারের মত) প্ল্যাটফর্ম। আপনি অন্য ফটোগ্রাফারদের অনুসরণ করতে পারেন, আপনার অনুসারী বাড়াতে পারেন। কম্যুনিটি গড়ার পাশাপাশি এখানে ছবিও বিক্রিও করা যায়, সেজন্য নির্দিষ্ট ছবিকে লাইসেন্সিঙের জন্য আবেদন করতে হয়। ছবি এপ্রুভ হলে ৫০০পিএক্স তার পার্টনারদের চ্যানেলে ছবি বিক্র করে। এখানে ছবরি প্রতিযোগীতাও হয়।

এখানে শুরু করাও সহজ। প্রথমে অ্যাকাউন্ট তৈরি করুন, আপনার ছবিগুলি শেয়ার করুন, সেগুলো লাইসেন্সিঙের জন্য সিলেক্ট করুন। ছবিতে মানুষ এবং ব্যক্তিগত ও কর্পোরেট স্থাপনা থাকলে মডেল বা প্রোপার্টি রিলিজ (দায়বদ্ধতা প্রকাশ) জমা দিতে হবে। ছবির ফাইলের আকারের উপর ভিত্তি করে রয়ালিটি দেয়। ছবি বিক্রি না করলেও অন্তত ভাল একটি কমিউনিটির সদস্য হতে পারবেন। বর্তমানে সিরিয়াস ফটোগ্রাফারদের 500px-এ একাউন্ট থাকতেই হবে।

৫. আইএম

EyeEM

EyeEM অনলাইনে ছবি বিক্রির একটি জনপ্রিয় সাইট, বিশেষ করে এখানে মোবাইলে তোলা ও সেলফি বিক্রি করা যায়। কিন্তু বাংলাদেশীদের জন্য দুঃসংবাদ হল এখানে টাকা শুধু পেপালের মাধ্যে প্রদান করে, যা বাংলাদেশে নেই।

৬. ডিপোজিট ফটোস

Deposit Photos

Depositphotos এর এক লাখেরও বেশি ফটোগ্রাফার আছে সারা দুনিয়ায় ছড়িয়ে। ওয়ার্নার ব্রোস, ট্রিপ এডভাইজর এখান থেকে ছবি কিনে। ফটোগ্রাফারের অভিজ্ঞতা, সাইটে একটিভিটির ভিত্তিতে ৩৪% থেকে ৪২% কমিশন দিয়ে থাকে।

৭. ড্রিমসটাইম

Dreams Time

২০ বছর পুরোনো এই সাইটে ৬ লাখের বেশি ফটোগ্রাফার ছবি বিক্রি করে থাকেন। অনলাইনে ছবি বিক্রি করতে Dreamstime অন্যান্য সাইটের মত অত সহজ নয়। পোর্টফোলিওর ৭০% ছবি অন্তত ৬ মাস রাখতে হবে সাইটটিতে। নন-এক্সক্লুসিভ ছবিতে ২৫% থেকে ৫০% কমিশন দেয়। এক্সক্লুসিভ ছবিতে ২৭.৫% থেকে ৫৫% কমিশন দেয়। এখানে 

৮. স্টকসি

Stocksy

Stocksy অনলাইনে ছবি বিক্রির জনপ্রিয় একটা মিড-রেঞ্জ স্টক সাইট। স্টকসি উচ্চ হারে রয়ালিটি দেয়। ফটোগ্রাফাররা স্ট্যান্ডার্ড লাইসেন্সে ৫০% রয়্যালটি এবং বর্ধিত লাইসেন্সে ৭৫% রয়্যালটি পেতে পারে। কিন্তু সাইটটি শতভাগ এক্সক্লুসিভ। যার মানে আপনি এখানে দেয়া ছবিগুলো অন্য স্টক ফটো ওয়েবসাইটগুলিতে সাবমিট করতে পারবেন না।

স্টসিও একটি কন্ট্রিবিউটর-মালিকানাধীন সমবায়, যার অর্থ আপনি ব্যবসার আংশিক মালিকানা পাবেন এবং এটির দিক নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করতে পারেন। এই দিক থেকে এটি ব্যতিক্রম। তাই এখানে জয়েন করার আগে ভালভাবে জেনে নেয়া ভাল।

৯. ক্যান স্টক ফটো

Can Stock Photo

CanStockPhoto স্টক ফটোগ্রাফি বিক্রি শুরু করার জন্য এটি ভাল সাইট। ৯২ হাজারের বেশি ফটোগ্রাফার এখান থেকে শুরু করেছেন। আপনি যখন ক্যান স্টক ফটোতে ছবি উপস্থাপন করেন, তখন এটি ফটোসার্চ নামে আরেকটি একটি স্টক ফটোগ্রাফি সংস্থার মাধ্যমে বিক্রি করে।

১০. এডোব স্টক

Adobe Stock

অনলাইনে ছবি বিক্রি করার জন্য Adobe Stock হল সেরা জায়গাগুলির মধ্যে একটি কারণ, আপনি যখন এখানে বিক্রির জন্য ছবি সাবমিট করেন, তখন সেগুলি আরেকটি স্টক সাইট ফোটোলিয়াতেও পাওয়া যায়। আপনি যদি ইতিমধ্যেই Adobe স্যুট ব্যবহার করেন, তাহলে আপনি সরাসরি Adobe Lightroom CC এবং Adobe Bridge CC থেকে এবং ওয়েবের মাধ্যমে আপনার ছবি, ভিডিও, ভেক্টর অ্যাডোব স্টকে যোগ করতে পারেন। এখানে বিক্রি করা ছবিতে ৩৩% পর্যন্ত কমিশন উপার্জন করতে পারেন।

১১. ফটোডান

photodune

থিম ফরেস্ট বা এনবাটোর একটি কনসার্ন Photodune. এখানে খুব সস্তায় ছবি বিক্রি হয়, মাত্র ৫ ডলারে, এমনকি ২ ডলারেও হতে পারে। কম দাম হওয়ায় ফটোগ্রাফারের আয় এখানে কম হবে, তবে বিক্রি হবার সম্ভাবনাও বেশি।

১২. ১২৩আরএফ

123RRF

123RF স্টক ফটোর জগতে একটা বড় নাম। এখানকার সকল ছবি নন-এক্সক্লুসিভ, মানে এখানে সাবমিট করা ছবি আপনি অন্য সাইটে বিক্রি করতে পারবেন। ফটোগ্রাফারকে ৩০% থেকে ৬০% পর্যন্ত কমিশন বা রয়ালিটি দিয়ে থাকে।

১৩. ফোপ

FOAP

Foap এর তিরিশ লাখ ফটো কন্ট্রিবিউটর আছে। এর পেমেন্ট সিস্টেম একটু ব্যতিক্রম। প্রতি বিক্রিতে ৫ ডলার দিয়ে থাকে। গেটি ইমেজেজ, এডোব স্টক ফটোর মধ্যমেও ছবি বিক্রি করে। এখান থেকে ক্রাফট হাইন্জ, হানিকেন, নিভিয়া ছবি ক্রয় করে।

১৪. জেন ফোলিও

Zenfolio

Zenfolio নতুনদের জন্য সহজ ওয়েবসাইট। তারা ৭% কমিশন দিয়ে থাকে। 

১৫. পিক্সিসেট

Pixieset

Pixieset এ অনলাইন স্টোর তৈরি করা যায় এবং এর উপর আপনার সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ থাকবে। আপনাকে যা করতে হবে তা হল আপনার ছবির বিক্রয় মূল্য নির্ধারণ করা এবং  আপলোড করা। ফ্রি প্ল্যানে ১৫% কমিশন কেটে রাখে। কিন্তু পেইড প্ল্যানে কোনো কমিশন পিক্সিসেটকে দিতে হয় না, পুরোটাই আপনার। পেইড প্ল্যান প্রতি মাসে মাত্র ৮ডলার থেকে শুরু হয়।

বোনাস: আপনার নিজের ওয়েবসাইট

নিজেই ওয়েবওয়েব সাইট তৈরি করে অনলাইনে ছবি বিক্রি করতে পারেন। অর্থাৎ আপনি নিজেই একটা এজেন্সির মালিক হবেন নিজের ছবি বিক্রি করতে। এর কিছু ভাল ও কিছু কঠিন দিক আছে। ভাল দিক হল আপনি নিজেই আপনার ছবির এডমিন। নিজের ইচ্ছে মত মূল্য নির্ধারণ করতে পারবেন, মূল্যের পুরোটাই আপনার, কমিশন কাটা যাবে না।

কঠিন দিকগুলো হল আপনাকে একটা ফুল ফিচার্ড ওয়েবসাইট তৈরি করতে হবে, সেজন্য প্রথমিক বিনিয়োগ বেশি। প্রথমে ডোমেইন ও হোস্টিং কিনতে হবে, ওয়েবসাইটে ছবি আপোলোডের পর SEO  ও মার্কেটিং করতে হবে ক্রেতা আনতে। পেমেন্ট সিস্টেম তৈরি করতে হবে। এটা সব ধরণের ফটোগ্রাফারের জন্য উপযুক্ত হলেও অভিজ্ঞ ও সুপরিচিত ফটোগ্রাফাররা এই পদ্ধতিতে সাফল্য পেতে পারেন।

নিজের ছবি বিক্রির ওয়েবসাইট বানাতে ডোমেইন হোস্টিং কিনবেন কোথায় থেকে ও কীভাবে?

ফিচার ছবি: by Paul Gaudriault on Unsplash

Put Your Opinion